logo



আমার প্রিয় লেখা



আমার ছবিঘর



অনলাইনে আছেন

আব্দুল্লাহ-আল-নোমান এর নতুন বন্ধু নাজমুল


আমাদের সাথে আছেন ৬৩ জন অতিথী
  

আব্দুল্লাহ-আল-নোমান এর অনলাইন ডায়েরী

আপনাদের সকলের উপর আল্লাহর শান্তি, রহমত এবং বরকত বর্ষিত হোক

ডায়েরী লিখছেন ৭ বছর ১১ মাস ২৬ দিন
মোট পোষ্ট ৬১টি, মন্তব্য করেছেন ১৫৪টি


মা !! যে আমার সব অপরাধ ক্ষমা করে দেয় !

লিখেছেন : T-virus       তারিখ: ১৩-০৫-২০১০



খুব সাকলে ঘুম থেকে উঠে পড়তে বসলাম । আজ আমার সমাজ পরীক্ষা। কিছুক্ষন পড়ার পর দেখি আম্মু আমার রুমে আসে । আম্মুর চেহারাটা কেমন শুকনা শুকনা লাগছে।আম্মু হুড়মুড় করে আমার বিছানায় উপর বসে পড়ল। আমি বুঝতে পারলাম আম্মুর শরীর খারাপ।আম্মুর পেশার আছে । মনে হচ্ছে আজ পেশারটা অনেক বেড়ে গেছে।আম্মুর মাথা ঘুরছে । আম্মু শুয়ে থাকতে পারছে না।আমি টেবিল থেকে উঠে গিয়ে আম্মুর কছে গিয়ে বসলাম।আমি আম্মুকে শুইতে বলি । আম্মু বলে এখন শুইতে পারবে না প্রচন্ড ভাবে মাথাটা ঘুরছে।আমাকে ধরে আম্মু কিছুক্ষন বসে খাকল।এরপর আমি পানি এনে আম্মুর মাথায় পানি দেই।মাথায তেল দিয়ে দিই। কিছুক্ষন পর আম্মুকে শুইয়ে দিলাম।

আমি আবার পড়তে বসি । কিন্তু পড়ায কোন মন বসে না।আম্মু দিকে তাকিয়ে দেখি আম্মু চোখ বন্ধ করে শুয়ে আছে। আমার খুবই কান্না পাচ্ছে। আম্মুর কিছু হলে আমি সহ্য করতে পারব না। আমি কাঁদতে শুরু করলাম । নীরবে কান্না যাকে বলে। শব্দ হবে না শুধু চোখ দিয়ে পানি পড়বে।আমি আবার খুব সহজে কাদিঁ কিনা!!!!

আমার আম্মুটা অন্য সাবার আম্মু থেকে অনেক ভাল।আমি আম্মুকে অনেক কষ্ট দিয়েছি।ছোটবেলা আমি অনেক দুষ্ট ছিলাম, আম্মুর সাথে অনেক খারাপ ব্যবহার করেছি।

আমার বার বার মনে হচ্ছে আম্মু যদি এখন মারা যায়। আল্লাহর কাছে আমি মনে মনে দুয়া করেছি আল্লাহ তুমি আমার আম্মুকে সুস্থ করে দাত্ত।

আম্মু সারাদিন রান্না-বান্না করেত্ত দুপুর বেলা না শুয়ে , রেস্ট না নিয়ে সেলাই করে । এক মহিলা আসে তার কাছ থেকে কাপড় সেলাই করে অল্পকিছু টাকা পায়।আমি অনেক বার আম্মুকে বলেছি এই সেলাই কাজ করার কোন দরকার নেই।এই সময়টা তুমি ঘুমায় তোমার উপকার হবে।আম্মু বলে, তোর আব্বু যা বেতন পায় তা দিয়ে চলতে হিমশিম খাই। এখন কিছু বাড়তি টাকা আসলে তোর রিকশা ভাড়া বা থাতা কলমে দামটা হবে।আমি আর কোন কথা না বলে আম্মুর দিকে তাকিয়ে থাকি।

আচ্ছা মারা সন্তানের জন্য এত কষ্ট করে কেন ??

আম্মু এখনো চোখ বন্ধ করে শুয়ে আছে।বাসার সবাই ঘুমিয়ে আছে।আমি মুধু জেগে আছি আম্মুর পাশে।

সূর্য পূর্ব দিকে উঠছে। আমি বারান্দায় গিয়ে দেখি সূর্যের দিকে তাকিয়ে আছি। সূর্যের সকালের কমল আলোটা কত না সুন্দর!! সূর্যের আলোটা আম্মুর চোখে লাগছে।আমি বারান্দার পর্দাটা টেনে দিলাম যেন আম্মুর চোখে আলোটা না পড়ে।

আমি আম্মু কাছে গিয়ে আমি মনে মনে ক্ষমা চাইলাম ‘আম্মু আমাকে ক্ষমা করে দাত্ত।’

মা দিবস কাল চলে গেছে । সময় না পাত্তয়ায় লিখতে পারিনি। কাল সারাদিন মাকে বলতে চেয়েছিলাম ” মা তোমাকে অনেক ভালবাসি’ কিন্তু বলা হয়নি। তাই আজ ব্লগে বলছি ।

সবার কাছে সবার মা অনেক প্রিয় আমার কছে আমার মা এধুম প্রিয় না। সবাই অবাক হচ্ছেনা তাই না। অসলে আমার মা আমার কাছে খুব খুব খুব………….খুব প্রিয় তাই শুধু প্রিয় বললে অনেক কম হয়ে যায় ।
আমি অনেক রাগি একটা ছেলে। কথায় কথায় রাগ কর। বিশেষ করে মার সাথে আমরা সবাই সবচেয়ে বেশি রাগ করি । সকল রাগ আমরা সবাই একটা মনুষের উপর ঝারি তা হল মা। কিন্তু মা এ সবকিছু ক্ষমা দৃষ্টি চোখে দেখে । মা আমার সকল মনে কথা গুলো বুঝতে পারে। আমি আমার মার সাথে রাগের মাথায় অনেক কিছু করি । মা তা সহ্য করে নেয় । আমি অবাক হয়ে ভাবি মারা এমন কেন? আমাদের সকল অপরাধ ক্ষমা করে দেয়।

এই মা দিবসে মাকে অনেক শুভেচ্ছ। মা তোমার সাথে অনেক অপরাধ করেছি জানি তুমি ক্ষমা করে দিয়েছ তবুত্ত আবার ক্ষমা চাচ্ছি ।

sorry মা !!!sorry মা!!!

৪৩৭২ বার পঠিত

 
১৩-০৫-২০১০
কায়সার আহমেদ বলেছেন: ভাই মা দিবস তো চলে গেছে।


১৩-০৫-২০১০
আব্দুল্লাহ-আল-নোমান বলেছেন: অনেক সুন্দর পোষ্ট।

আমার প্রিয় পোষ্টের তালিকায় যোগ করলাম।


মন্তব্য করতে লগিন করুন।
  

সাম্প্রতিক মন্তব্য







ছবিঘরের নতুন ছবি