logo



আমার লেখালেখি



আমার প্রিয় লেখা



আমার ছবিঘর



অনলাইনে আছেন

আব্দুল্লাহ-আল-নোমান এর নতুন বন্ধু নাজমুল


আমাদের সাথে আছেন ৫৮ জন অতিথী
  

আব্দুল্লাহ-আল-নোমান এর অনলাইন ডায়েরী

আপনাদের সকলের উপর আল্লাহর শান্তি, রহমত এবং বরকত বর্ষিত হোক

ডায়েরী লিখছেন ৭ বছর ৯ মাস ২৪ দিন
মোট পোষ্ট ৬১টি, মন্তব্য করেছেন ১৫৪টি


আড়াল থেকে বেরিয়ে আসছে জ্যাকসনের সন্তানেরা

লিখেছেন : আব্দুল্লাহ-আল-নোমান       তারিখ: ২৫-০৬-২০১০



‘জন্ম নেওয়ার পর থেকে দেখেছি আমার বাবাই ছিল সম্ভবত সবচেয়ে ভালো বাবা।’ গত বছরের জুলাইয়ে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের স্ট্যাপলস সেন্টারে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে বাবা মাইকেল জ্যাকসন সম্পর্কে এভাবেই অনুভূতি আর ভালোবাসার কথা জানিয়েছিল মেয়ে প্যারিস। সেবারই প্রথম প্রয়াত পপসম্রাটের তিন সন্তানকে একই মঞ্চে জনসমক্ষে দেখতে পেয়েছিল বিশ্ববাসী।
কাল শুক্রবার মাইকেলের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। গত বছরের ২৫ জুন পপসম্রাটের মৃত্যুর পর গত এক বছরে ধীরে ধীরে বাড়ির চার দেয়ালের আড়াল থেকে আলোচনায় আসতে শুরু করেছে দাদির তত্ত্বাবধানে থাকা তাঁর সন্তানেরা। কিন্তু জীবদ্দশায় মাইকেল অনেকটাই লোকচক্ষুর আড়ালে বড় করে তুলছিলেন তিন সন্তান প্রিন্স, প্যারিস ও ব্ল্যাংকেটকে।
মাইকেলের মৃত্যুর পর আদালতের রায়ে তাঁর সন্তানদের দেখাশোনা করার দায়িত্ব পান তাদের দাদি ক্যাথেরিন জ্যাকসন। এরপর থেকে মাঝেমধ্যেই সংবাদমাধ্যমগুলোয় টুকরো খবর আসতে শুরু করে এ সন্তানদের ব্যাপারে। গত জানুয়ারিতে দ্বিতীয়বারের মতো লস অ্যাঞ্জেলেসের স্ট্যাপলস সেন্টারের মঞ্চে দেখা যায় প্যারিস ও প্রিন্সকে। গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে বাবার পক্ষে আজীবন সম্মাননা পুরস্কার নিতে হাজির হয়েছিল তারা।
ওই অনুষ্ঠানে দর্শক-শ্রোতার উদ্দেশে বড় ছেলে প্রিন্স বলেছিল, ‘আমাদের বাবা মাইকেল জ্যাকসনের পক্ষে এ পুরস্কার নিতে পেরে আমরা গর্বিত। গত সাত মাসে আমাদের দেখভাল করার জন্য প্রথমেই আমরা ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিতে চাই এবং ধন্যবাদ দিতে চাই আমাদের দাদা-দাদিকে তাদের ভালোবাসা ও সহানুভূতির জন্য। আমরা ভক্তদেরও ধন্যবাদ জানাতে চাই। বাবা আপনাদের খুবই ভালোবাসতেন। কারণ, আপনারা তাঁর সঙ্গে ছিলেন।’
গত আগস্টে আদালতের রায়ে মাইকেলের সন্তানদের দায়িত্ব নেওয়ার পর দাদি ক্যাথেরিন লস অ্যাঞ্জেলেসের শহরতলি এনসিনোতে পারিবারিক বাড়িতে তাদের নিয়ে আসেন। মাইকেলের সন্তানেরা এর আগে ঘরেই লেখাপড়া শিখত। কিন্তু দায়িত্ব নেওয়ার পর ক্যাথেরিন জানান, তাঁর নাতিরা এ বছরেই স্কুলে যাবে।
গত সপ্তাহে ব্রিটেনের মেইল অন সানডে পত্রিকাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ক্যাথেরিন বলেন, ‘তাদের কোনো বন্ধু নেই। তারা স্কুলে যায় না, বাড়িতেই লেখাপড়া শিখছে। কিন্তু আগামী সেপ্টেম্বরে তারা একটি স্কুলে ভর্তি হবে।’ তিনি জানান, চাচা-চাচি ও চাচাতো ভাইবোনেরা সব সময়ই মাইকেলের সন্তানদের সঙ্গ দেয় এবং এটা তাদের বেড়ে জন্য খুবই সহায়ক। বাচ্চারা এবং পুরো পরিবার মাইকেলকে হারানোর বেদনা সহ্য করতে লড়াই করে।
ক্যাথেরিন জানান, প্যারিস ভালো ছবি আঁকে, ভালো পিয়ানো বাজায়। একজন অভিনেত্রী হওয়ার ইচ্ছা তার। প্রিন্সের নানা বিষয়ে আগ্রহ রয়েছে। সে সিনেমার প্রযোজক বা আলোকচিত্রী হতে আগ্রহী। আর ব্ল্যাংকেট খুবই চঞ্চল, মাইকেল যেমনটি ছিল। এএফপি।

৩১১৩ বার পঠিত

 
মন্তব্য করতে লগিন করুন।
  

সাম্প্রতিক মন্তব্য







ছবিঘরের নতুন ছবি